ইসলাম

মালয়েশিয়া : বিশ্বাস ও ভালোবাসার গল্প

ন্যূনতম ধর্মীয় শিক্ষা অপরিহার্যতার ফুল যেখানে সুবাস ছড়ায়

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ছাকিবুল ইসলাম কাসেমী

তিন জাতির সহাবস্থানে একটি বর্ণিল সংস্কৃতির দেশ মালয়েশিয়া ৷ ভাষা বর্ণ ও ধর্মের সব ভেদাভেদকে তুচ্ছ করে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে বিশ্বের দরবারে ৷
পবিত্র ধর্ম, নিজস্ব কর্ম, শিক্ষার ঐতিহ্য, আদর্শের আভিজাত্য ও উন্নয়নস্বপ্ন নিয়ে বয়ে যায় তাদের সময় ৷ ধর্মের প্রতি অকৃত্তিম আস্থা, কর্মের ক্ষেত্রে ঐকান্তিক নিষ্ঠা, শিক্ষার অঙ্গনে অরূদ্ধ পথচলা, আদর্শের পথে আপোষহীনতা ও উন্নয়নপ্রশ্নে আকণ্ঠ মগ্নতা তাদেরকে আত্বনিবেদনে আরও একনিষ্ঠ করে তুলে ৷

এখানে ধার্মিকতাকে আধুনিকতা ও উন্নত বিশ্বের বৈষয়িক প্রতিযোগিতার অন্তরায় ভাবা হয় না ৷ চলমান জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ ও পরিপূরক মনে করা হয় ৷ কারও দু:খ-কষ্টে কেউ এগিয়ে আসতে কার্পণ্য বোধ করে না ৷ কারও সুখানন্দে ও এগিয়ে যাওয়ার নির্মল গল্পে কেউ অন্তর্জ্বালা বোধ করে না ৷ কারও অগ্রযাত্রাকে বাঁধাগ্রস্ত করার জরাগ্রস্ত নষ্টচিন্তাকে মোহাবিষ্ট হয়ে লালন করার অরুচিকর আগ্রহও দেখা যায় না কারও মধ্যে ৷
প্রিয় পাঠকের জ্ঞাতার্থে বলে রাখি, আমার মালয়েশিয়া বিষয়ক জানাশোনা নেট, ওয়েব, উইকি, এফবি, পত্র-পত্রিকা ও মিডিয়া নির্ভর নয় ৷ শিক্ষকতার সুবাদে প্রায় তিন (2014-2017) বৎসর মালয়েশিয়া থেকেছি ৷ প্রায় আঠারবার দেশে আসা যাওয়া করেছি ৷ বিমানের পাইলট থেকে নিয়ে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, প্রফেসর, প্রশাসন, নেতৃস্থানীয় লোক ও বিভিন্ন পেশা ও শ্রেণীর মানুষের সাথে মিশেছি ৷ ছোট্র একটি ব্যবসায়ীক সংশ্লিষ্টতায় অর্থনৈতিক অঙ্গণকেও টাচ করেছি ৷ মালয়েশিয়ার পার্শস্ত দেশ ব্রুনাই, থাইল্যাণ্ড ও সিংগাপুর আসা যাওয়া করেছি ৷ এভাবে বর্ণিল প্রত্যক্ষ্য অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ হয়েছি ৷ তাই মেনুয়াল, থিউরীকেল ও তথ্য-তত্বমূলক আলোচনা না করে জীবনধর্মী প্র্যকটিক্যাল কিছু মৌলিক বিষয় নিয়ে সামান্য কথা বলব ইনশাআল্লাহ ৷ যেসব বিষয় যথারীতি আমাকে আলোড়িত করে ৷ সম্ভাবনাময় আমার দেশ ও দেশের মানুষদেরকে নিয়ে স্বপ্ন দেখতে অনুপ্রাণিত করে ৷

ধর্মচর্চা: –
দেশটির রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ৷ আরও বহু ধর্মের গুঞ্জরন থাকলেও ইসলামের পাশাপাশী বৌদ্ধ ( চায়নীজ) ও হিন্দু (ইণ্ডিয়ান) ধর্মের অবস্থানই সুদৃঢ় ৷ তাই তিনটি ধর্মীয় উৎসবেই সরকারী ছুটি থাকে ৷ রাষ্ট্রীয়ভাষা মালয় হলেও প্রশাসনিক অফিসিয়াল ভাষা হিসেবে চায়নীজ ও তামিলেরও ব্যবহার হয় ৷ চায়না বৌদ্ধ ও তামিল হিন্দুদের ধর্মীয় উৎসব পালনের জন্য নির্দিষ্ট অঞ্চল ভাগ করে দেয়া আছে ৷ সেসব এলাকায় তারা এতটাই স্বাধীন যে, উৎসবকালীন সময়ে সেসব এলাকায় গেলে আপনার মনে হবে এটা চীন বা ভারতের কোনো অঙ্গরাজ্য ৷
এক্ষেত্রে ব্রুনাই একটি আদর্শ রাষ্ট্র ৷ উৎসব ও সাধারন জীবন যাপনের ক্ষেত্রেও পরিবেশ নষ্টকারী অস্বাভাবিক শর্টড্রেস ও গানবাজনা ইত্যাদীর ব্যপারে ওখানে বিধিনিষেধ আরোপ করা আছে ৷

সবচেয়ে মজার ব্যপার হল, মালয়েশিয়ার মুসলিম সমাজটি প্রায় পূর্ণাঙ্গভাবেই মসজিদভিত্তিক ৷ দিন রাত মসজিদের আবহেই আবর্তিত হয় ছোটবড় সব বিষয় ৷ বিয়ে-শাদী মসজিদে ৷ অনুষ্ঠান মসজিদে ৷ সেমিনার সিম্পোজিয়াম মসজিদের নির্দিষ্ট হলে ৷ ছোট বড় নারী পুরূষদের প্রাত্যহিক সাপ্তাহিক পাক্ষিক মাসিক সব দীনি শিক্ষাকার্যক্রম মসজিদে ৷ ওয়াজ মাহফিলের জন্য বিশাল বাজেটে এখানে সেখানে ভিন্ন কোনো সিজোনাল আয়োজন নেই, প্রতিদিন মসজিদে বাদ মাগরিব নির্দিষ্ট বিষয়ের নির্দিষ্ট আলোচকের মাধ্যমে নিয়মিত মাহফিল চলতে থাকে ৷ আগ্রহী নারী পুরুষগণ অংশগ্রহণ করে দীনি ক্ষুধা তৃষ্ণা মিটাতে থাকে ৷
শাফেয়ী মাযহাবের বিধানগত আনুকল্যে এবাদত, শিক্ষা, সাংস্কৃতি বিষয়ক সব আয়োজনেই প্রয়োজনীয় পর্দার ব্যবস্থাপনার সাথে নারীপুরুষ সবাই অংশগ্রহণ করে থাকে ৷ পারিবারিক সামাজিক ও কালচারাল অধিকাংশ প্রোগ্রাম মসজিদকেন্দ্রিক পরিবেশে হওয়াতে স্বাভাবিকভাবেই অশ্লিলতা ও অনৈসলামিক গান-বাজনা মুক্ত থাকে ৷ আলেম, তালেব, ইমাম দায়ী এসব ইসলামী ব্যক্তিবর্গ এদের কাছে এখনও ফেরেশতা তূল্য ৷ এদের অকৃত্বিম সম্মান ও ভালেবাসা দেখলে আপনার মনে এমন কেউ হয়ে এদেশে আজীবন বসবাসের নিশ্চিত সাধ জাগবে !
মালয়েশিয়ার এই মসজিদকেন্দিক পরিবেশ ও ইসলামপ্রিয় সমাজের উপভোগ্য স্বাদ আমার মনে ও মুখে আজও লেগে আছে ৷

শিক্ষা ও সংস্কৃতি:-
জাতীয় ও আন্তধর্মীয় বড় বড় আঞ্চলিক প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশী প্রত্যেক ধর্মের নিজস্ব বিশেষ প্রতিষ্ঠানও রয়েছে দেশটিতে ৷ বিস্ময়করভাবে কখনও কখনও মুসলিম প্রতিষ্ঠানে চায়না ও হিন্দুদেরকে পড়তে দেখা যায় ৷ আবার চায়নীজ প্রতিষ্ঠানেও পড়তে দেখা যায় মুসলিম ও হিন্দুদেরকে ৷ এটা পারষ্পরিক সম্প্রীতি ও আন্তরিকতা থেকেই হয়ে থাকে ৷ শিক্ষা-দীক্ষার ব্যপারে মুসলমানদের পরে কোয়ালিটি ও কোয়ানটিটি উভয় ক্ষেত্রে চায়নারাই এগিয়ে ৷

মুসলিম মালয়েশিয়ার শিক্ষাব্যবস্থা অনেকটা বাংলাদেশের মতোই তিনটি ধারায় চলমান ৷ স্কুল কলেজের সাধারন শিক্ষা, সরকারী মাদরাসা ও বেসরকারী মাদরাসা ৷ সরকারী মাদরাসায় সিলেবাসজনিত সরকারী কোনো বিশেষ বিধিনিষেধ নেই ৷ শুধু কিছু সুপারিশ থাকে ৷ মাদরাসা কতৃপক্ষ নিজেদের মত করে সিলেবাস তৈরী করে নিতে পারে ৷ সরকারী অনুমোদনটা বিশেষভাবে বহির্দেশীয় ছাত্র শিক্ষকের জন্য নিতে হয় ৷ বেসরকারী মাদরাসাগুলো পুরো আমাদের কওমী মাদরাসার মতোই ৷ তবে সরকারী বেসরকারী সব মাদরাসাতেই সাদা জুব্বা পাগরীর নির্দিষ্ট ড্রেস থাকে ৷ এই সফেদ পোশাকের আভিজাত্য পরিবেশকে এক অনন্য সৌন্দর্য দান করে ৷ শাফেয়ী মাযহাব বান্ধব সিলেবাস হলেও ইদানিং দারুল উলুম দেওবন্দ ও পাকিস্তানে তাদের ব্যাপক পড়াশোনার সুবাদে অধিকাংশ দাওরাহাদিস মাদরাসা এখন পুরো দারুল উলুম দেওবন্দের অনুসরনেই পরিচালিত হচ্ছে ৷

সাধারন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মীয় শিক্ষার গুরূত্বের ব্যপারে তারা প্রবাদতুল্য বলা যায় ৷ ধর্মশিক্ষা ধর্মীয় শিক্ষক আমাদের স্কুলগুলোতেও আছে, কিন্তু ব্যবধানটা কত বিশাল দেখুন ৷ যে ব্যবধান ওদের সারা দেশের স্ট্রাকচারকেই পাল্টে দিয়েছে ৷ আমাদেরতো সরকারী প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে ধর্মশিক্ষার কোনো বাধ্যবাধকতা নেই ৷ অনেক স্কুলে এবিষয়ের কোনো নির্দিষ্ট পুস্তকও নেই ৷ আর যেখানে আছে তাদের অবস্থা হল, স্কুল কলেজ ভার্সিটি শেষ হচ্ছে, তবু না কুরআন শরীফের শুদ্ধ তেলাওয়াৎ জানে, না নামাজ রোজা হজ্ব যাকাতের জরুরী মাসায়েল জানে ৷ ব্যতিক্রম এক দু’টি ঘটনা পারিবারিক পরিচর্যার কারণে হয়, প্রতিষ্ঠানের কল্যাণে নয় ৷ যা বড়ই আফসুসজনক ও হতাশাব্যঞ্জক ৷

মালয়েশিয়ায় সরকারী বেসরকারী কিংবা মুসলিম ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল হলেও অনুর্ধ্ব প্রাইমারী লেবেলেই বিশুদ্ধ কুরআন তেলাওয়াৎসহ ইসলামের পঞ্চস্তম্ভের স্পষ্ট ধারনা ও বয়সের স্তর অনুপাতে জরুরী পারিবারিক সামাজিক ও অর্থনৈতিক জ্ঞান অর্জন বাধ্যতামূলক ৷ তাই অন্যান্য বিষয়ের সাথে বিশুদ্ধ কুরআন তিলাওয়াতে উত্তীর্ণ না হতে পারলে মাধ্যমিক স্তরের জন্য ভর্তির অযোগ্য বলে বিবেচিত হয় ৷
আমিতো এক প্রতিষ্ঠানে কেজি ২য় ৩য় শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদেরকে কা’বা শরীফ, হাতীম, হজরে আসওয়াদ ইত্যাদী বানিয়ে এহরামের কাপড় পড়িয়ে হজ্বের পূর্ণ প্রশিক্ষণ প্রদান উপভোগ করে দারুণ শিহরীত হয়েছিলাম ৷ টুনটুনিদের চমৎকার তেলাওয়াৎ আর আরবি লেখার কথা না হয় নাই বললাম ৷ অথচ দাওরা পর্যন্ত দীর্ঘ মাদরাসার শিক্ষা জীবনে কোথাও এমন কোনো সুন্দর প্রশিক্ষণ দেখিনি ৷
শিক্ষার শেকড়ে এই কুরআনী শিক্ষার বাধ্যবাধকতায় সমগ্র দেশ জুড়ে এক অন্যরকম পবিত্র ও চমকে উঠা চিত্র আপনি দেখতে পাবেন ৷ যা অনেক মুসলিম দেশে এখনও দু:স্বপ্নই বলা চলে ৷ ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, প্রফেসর,ব্যবসায়ী, শ্রমিক, ড্রাইভার,পুলিশ, সেনাবাহিনী যে কারো কাছে অন্যান্য পূজী যতটুকোই থাকুক না কেন, বিশুদ্ধ কুরআন তিলাওয়াৎ, বেশ কিছু আরবি দোয়া ও জরুরী মাসায়েলে সে সমৃদ্ধ থাকবেই ৷

একবার এক বাসষ্ট্যাশনের নামাজ ঘরে পেনশার্ট পরা দাড়ীবিহীন এক ড্রাইভার ইমামতি করতে গেলে ভেবেছিলাম ” একলাই নামাজ পড়ে নেই, তার তিলাওয়াৎ শুদ্ধ হয় কী না ?” পরে জামাতে শরীক হলে তার শুদ্ধ সুমধুর তিলাওয়াতে ও নামাজ শেষে দীর্ঘ আরবি দোয়াসমূহ পড়তে শুনে মনে মনে অনেক লজ্জিত হয়েছিলাম ৷

২০১৫ তে মালয়েশিয়া এয়ারপোর্টে প্রথমবার যখন ইমিগ্রেশন অফিসার আমার ইন্টারভিউ নিচ্ছিল; তার আরবি কথা, শুদ্ধ তিলাওয়াৎ ও শিয়া সুন্নী বিষয়ক বিভিন্ন গুরূত্বপূর্ণ প্রশ্ন শুনেতো আমি ঠিক বুঝতেই পারছিলাম না, আমি কী কোনো পুলিশ অফিসারের সামনে দাঁড়িয়ে আছি না কী কোনো বিশেষজ্ঞ মুফতী সাহেবের সামনে আছি !

এমন ঘটনা অনেক ৷ দেশের সব অঙ্গনের রন্দ্রে ও মর্মে, কর্তাব্যক্তিদের মন ও মননে দীনি শিক্ষার ঘনিষ্ঠতা থাকাতে সব পরিবেশেই এক অপার্থিব পবিত্র আবহ বিরাজ করে ৷ পাপ পুণ্যের এই পৃথিবীতে সকলেই আরেকটু শুদ্ধদিল ও চিন্তাশীল কদম ফেলার চেষ্টা করে ৷

Facebook Comments

Leave a Reply